রবিবার , ১২ জুন ২০২২ | ১৪ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খেলাধুলা
  4. চিকিৎসা
  5. জবস
  6. বিনোদন
  7. বিশেষ প্রতিবেদন
  8. ভিন্ন আয়োজন
  9. শিক্ষা
  10. সারাদেশ

কলকাতায় আটকা ১৫ নাবিকের দেশে ফেরা নিয়ে এখনো অনিশ্চয়তা

প্রতিবেদক
TheDhakaNews
জুন ১২, ২০২২ ৭:০৫ পূর্বাহ্ণ

কলকাতা বন্দরে দুর্ঘটনাকবলিত জাহাজ ‘এমভি মেরিন ট্রাস্ট-০১’ এর ১৫ বাংলাদেশি নাবিকের দেশে ফেরা নিয়ে অনিশ্চয়তা এখনো কাটেনি। প্রায় দুই মাস ধরে আটকে আছেন তারা। নাবিকদের দেশে ফেরার বিষয়ে নিশ্চিত কোনো তথ্য দিতে পারছেন না বাংলাদেশ নৌপরিবহন অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর কর্মকর্তারা। তবে ক্ষতিপূরণ নিয়ে সমঝোতা না হওয়া ও নাবিকরা একসঙ্গে সবাই দেশে ফিরতে চাওয়াও বিলম্বের কারণ বলছেন কেউ কেউ।

গত ২৯ এপ্রিল সন্ধ্যায় জাহাজটির মালিকপক্ষ আটকেপড়া নাবিকদের ৭-৮ দিনের মধ্যে দেশে ফিরিয়ে আনার আশ্বাস দেন। এরপর পেরিয়েছে আরও তিন সপ্তাহ। এখনো এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিদ্যমান ‘প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট অ্যান্ড ট্রেড’র (পিআইডব্লিউটিটি) আওতায় কোস্টাল শিপিং চুক্তির মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে কনটেইনারবাহী জাহাজ চলাচল করছে।

জানা যায়, গত ২০ মার্চ ১৫ জন নাবিক চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ‘এমভি মেরিন ট্রাস্ট-০১’ জাহাজ নিয়ে কলকাতায় রওয়ানা দেন। সেখানে তারা ২৩ মার্চ পৌঁছান। ২৪ মার্চ সকাল ৯টায় কলকাতা শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি বন্দরের ৫ নম্বর লটে পণ্যবাহী কন্টেইনার তোলা শেষে একপাশে কাত হয়ে উল্টে যায় জাহাজটি। এসময় নাবিকেরা দ্রুত জাহাজ থেকে নেমে পড়েন। জাহাজটিতে ২০ ফুটের ১২০টি ও ৪০ ফুটের ৪৫টি কনটেইনার ছিল। লোড কন্টেইনারগুলোর ওজন ছিল তিন হাজার ৮৯ মেট্রিক টন। ২৫ মার্চ কলকাতা থেকে জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছানোর কথা ছিল।

২৮ এপ্রিল বিকেলে ওই ১৫ নাবিক সাড়ে তিন মিনিটের একটি ভিডিওবার্তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপলোড করেন। ভিডিওবার্তায় তারা দেশে ফেরার আকুতি জানান।

দুর্ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জাহাজের প্রধান প্রকৌশলী ফাহিম ফয়সাল জানান, কলকাতা বন্দর কর্তৃপক্ষ তাদের মেরিন ক্লাব হোটেলে (সি-ম্যান হোস্টেল) রেখেছে। সেখানে তাদের পাসপোর্টও নিয়ে নেওয়া হয়েছে। দীর্ঘ এক মাস ধরে তারা অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছেন।

সর্বশেষ - আন্তর্জাতিক

আপনার জন্য নির্বাচিত